হিংসা পরিত্যাগ করা অত্যাবশ্যক [প্রথম পর্ব]

হাসাদ শব্দটি আরবি। এর অর্থ হিংসা করা। হাসাদ বা হিংসা একটি মারাত্মক বদগুণ। এটি এতই নিকৃষ্ট যে, এর কারণে সবাই কষ্ট পায়। যার প্রতি হিংসা করা হয় সে তো কষ্ট পায়ই, এমনকি খোদ হিংসুক নিজেও এর কারণে কষ্ট পায়। এছাড়াও হিংসার আগুন যখন জ্বলে উঠে তখন আশপাশের লোকও এ থেকে রেহাই পায় না। হাসাদ থেকে আশ্রয় চাওয়ার জন্য আল কোরআনে এরশাদ হচ্ছে, وَمِن شَرِّ حَاسِدٍ إِذَا حَسَدَ ‘আর (আশ্রয় চাচ্ছি) হিংসুকের অনিষ্ট থেকে, যখন সে হিংসা করে।’ (সূরা ফালাক : ৫)।

কুরআনের পরিভাষায় হাসাদ:
আল কোরআনের অনেক স্থানে হাসাদ বা হিংসার নিন্দাবাদ করা হয়েছে। বিশেষ করে হিংসুক জাতি ইহুদিদের আচরণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলা হয়েছে, তাদের অবাধ্যতার জন্য হাসাদ বা হিংসা নামের বদচরিত্রই দায়ী। যেমন— এক আয়াতে বলা হয়েছে, أَمْ يَحْسُدُونَ النَّاسَ عَلَى مَا آتَاهُمُ اللّهُ مِن فَضْلِهِ  অর্থাৎ, ‘নাকি তারা মানুষের প্রতি এজন্য হিংসা করে যে, আল্লাহ তায়ালা তাদের স্বীয় করুণা দান করেছেন।’ (সূরা নিসা : ৫৪)। হাসাদ একটি চরম ঘৃণিত বদখাসিলত। তাই তো কোরআনে হাসাদ থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় কামনা করতে বলা হয়েছে। সূরা ফালাকে বলা হয়েছে, ‘আর (আমি আশ্রয় চাই) হিংসুকের অনিষ্ট থেকে, যখন সে হিংসা করে।’ হাসাদ বা হিংসা থেকে বারণ করে আল্লাহ তায়ালা অপর স্থানে বলেন, ‘আর তোমরা কামনা করো না ওই জিনিস, যা দিয়ে আল্লাহ তায়ালা তোমাদের কাউকে অপর কারো ওপর প্রাধান্য দিয়েছেন।’
ইমাম কুরতুবি (রহ.) বলেন, ‘হাসাদ বা হিংসা করা নিন্দনীয় এবং হিংসুক নিজে সর্বদা চিন্তাযুক্ত থাকে। হিংসা নেক আমলকে সেভাবে খেয়ে ফেলে, যেভাবে আগুন কাঠকে খেয়ে ফেলে। বলা হয়, হাসাদ বা হিংসা হলো পৃথিবীর প্রথম পাপ, যা আসমানে করা হয়েছিল আর তা দুনিয়ারও প্রথম পাপ। আসমানে আদম (আ.) এর প্রতি হিংসা করেছিল ইবলিশ। আর জমিনে কাবিল হিংসা করেছিল তার ভাই হাবিলের প্রতি।’

হাদিসের পরিভাষায় হাসাদ:
হাসাদ বা হিংসা একটি মারাত্মক বদগুণ বা হারাম স্বভাব। অসংখ্য হাদিসে এ ব্যাপারে উম্মতকে সতর্ক করা হয়েছে। যেমন— আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত এক হাদিসে মহানবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা পরস্পরের প্রতি হাসাদ করো না, একে অন্যের পেছনে পড় না। আর তোমরা পরস্পর ভাই হিসেবে আল্লাহর বান্দা হয়ে যাও।’ আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত অপর এক হাদিসে মহানবী (সা.) বলেন, عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏”‏ إِيَّاكُمْ وَالْحَسَدَ فَإِنَّ الْحَسَدَ يَأْكُلُ الْحَسَنَاتِ كَمَا تَأْكُلُ النَّارُ الْحَطَبَ ‏”‏ ‏.‏ أَوْ قَالَ ‏”‏ الْعُشْبَ ‏”‏ ‏.‏ অর্থাৎ, ‘তোমরা হিংসা করা থেকে বেঁচে থাকো। কেননা হিংসা নেক আমলকে সেভাবে খেয়ে ফেলে, যেভাবে আগুন কাঠকে খেয়ে ফেলে।’ (সূনান আবু দাউদ, ইফাঃ ৪৮২৩)

[চলবে…]

Related posts

Top