প্রশ্নোত্তর articles

লেনদেন : ইন্সুরেন্স বা জীবন বীমার শরয়ী বিধান

লেনদেন : ইন্সুরেন্স বা জীবন বীমার শরয়ী বিধান

প্রশ্ন : ইসলামের দৃষ্টিতে লাইফ ইন্সুরেন্স বা জীবন বীমা করা কি বৈধ? কারণসহ জানতে চাই। এতে কেউ জড়িয়ে পড়লে এখন তার করনীয় কী? উত্তর : না, শরীয়তের দৃষ্টিতে এটা সম্পূর্ণ নাজায়েয ও হারাম একটি লেনদেন। ওআইসির শাখা সংস্থা “আর্ন্তজাতিক ফিকহ একাডেমি” এবং সৌদীআরবের সর্বোচ্চ ধর্মীয় সংস্থা “উচ্চ উলামা পরিষদ” সহ বিশ্বের নির্ভরযোগ্য সকল প্রতিষ্ঠান ও

লেনদেন : মাল গুদামজাত করে বেশী দামে বিক্রি করা

প্রশ্ন : আমাদের দেশে অনেক মানুষ খাদ্য-শস্য, ফসল ইত্যাদি গুদামজাত করে রাখে। পরবর্তীতে বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেলে তখন অধিক দামে তা বিক্রি করে থাকে। এমন লেনদেন শরীয়তের আলোকে জায়েয আছে কিনা জানিয়ে বাধিত করবেন। উত্তর : খাবার জাতীয় পণ্য ছাড়া অন্যান্য পণ্য গুদামজাত করে পরবর্তীতে বেশী দামে বিক্রি করতে কোনো বাধা নেই। তবে খাবার জাতীয়

আযান : আযানের আওয়াযে শয়তানের পলায়ন

প্রশ্ন : মুরুব্বীদের থেকে শুনেছি যে, শয়তান নাকি আযান শুনলে বায়ুবাতাস করতে করতে পলায়ন করে। এ কথার সততা কতোটুকু? কুরআন-হাদীসে কি এমন কোনো কথা আছে? উত্তর : হ্যাঁ, আপনি যা শুনেছেন তা পুরোপুরি সঠিক। শয়তান আযান বা ইকামত শুনলে বায়ুবাতাস করতে করতে আওয়ায পৌঁছা পর্যন্ত দূরত্বে পলায়ন করে। যেমন সুনানে দারেমীতে সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে-

আযান : “আস সালাতু খাইরুম মিনান্নাঊম” এর উত্তর

প্রশ্ন : ‘আস সালাতু খাইরুম মিনান্নাঊম’ এর জবাবে কী বলা নিয়ম? “আস সালাতু খাইরুম মিনান্নাঊম”-ই বলবো নাকি “সাদাকতা ও বারারতা” বলবো? উত্তর : আযানের উত্তরে মুআযযিন যা বলে তাই বলা নিয়ম। শুধুমাত্র “হাইয়া আলাস সালাহ” ও “হাইয়া আলাল ফালাহ” এর ব্যতিক্রম। এ দু’ক্ষেত্রে উত্তরদাতা “লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ” বলবে। যেমন সহীহ বুখারীর বর্ণনায়

মীরাস। ধর্মত্যাগকারীর জন্য মীরাসের বিধান

প্রশ্ন : আমার এক পরিচিত লোক ইসলাম এবং সৃষ্টিকর্তার প্রতি অবিশ্বাস পোষণ করে। সে ইসলামের বিভিন্ন বিধানের ব্যাপারে সমালোচনা করে এবং আখিরাত ও কিয়ামত দিবসকে অস্বীকার করে। ইতিমধ্যে তার পিতা মারা যায়, যিনি ছিলেন একজন ধর্মপরায়ণ মুসলমান। আমার জানার বিষয় হলো, এক্ষেত্রে তার এ সন্তান কি মীরাসের সম্পত্তি পাবে? উত্তর : মুসলমান ব্যক্তির মীরাস পাওয়ার

Top