সমাজ ও রাষ্ট্র articles

ইসলামী রাষ্ট্রের মৌলিক নীতিমালা

ইসলামী রাষ্ট্রের মৌলিক নীতিমালা

ইসলামী রাষ্ট্র একটি জনকল্যাণমূলক আদর্শবাদী রাষ্ট্র। এর ধরন ও প্রকৃতি আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের চাইতে অনেকাংশে ভিন্ন। ইসলামের শাশ্বত আদর্শ ও মূলনীতির ওপর ভিত্তি করে ইসলামী রাষ্ট্র পরিচালিত হয়। এ আদর্শ ও মূলনীতির প্রতি কার বিশ্বাস ও আস্থা আছে আর কার নেই- এ হিসেবে ইসলামী রাষ্ট্র তার নাগরিকদেরকে মুসলিম ও অমুসলিম দু শ্রেণীতে ভাগ করে থাকে।

ইসলামী বিচারব্যবস্থার শ্রেষ্ঠত্ব [দ্বিতীয় পর্ব]

বিচারপতি নিয়োগ পদ্ধতিঃ বিচারপতি নিয়োগ পদ্ধতি এমন হওয়া উচিত যেন তারা শাসন বিভাগ বা অন্য কারো উপর নির্ভরশীল না হন। জাগতিক বিচারালয়ে বিচারপতি নিয়োগের তিনটি পদ্ধতি বিদ্যমান। (ক) জনগণের দ্বারা প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচন। (খ) আইনসভা কর্তৃক মনোনয়ন । (গ) শাসন বিভাগ কর্তৃক নিয়োগ। ইসলামে শাসন বিভাগ কর্তৃক বিচারক নিয়োগ করা হয়। তবে বিচার বিভাগ স্বাধীন হওয়ায়

ইসলামী বিচারব্যবস্থার শ্রেষ্ঠত্ব [প্রথম পর্ব]

বিচার ও ইনসাফ প্রতিটি মানুষের অতি স্বাভাবিক অধিকার। আলো বাতাস, পানি, অক্সিজেন প্রভৃতি প্রাকৃতিক সম্পদ যেমন দেশের প্রতিটি মানুষই পেতে পারে, এ অধিকার হতে কেউ কাউকে বঞ্চিত করতে পারেনা, তেমনি সুবিচারও। এ ব্যাপারে ইসলাম মানুষের মাঝে কোন পার্থক্য করেনা । ইসলাম মানুষের সুবিচার নিশ্চিত করাকে প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব বলে মনে করে। এ সম্পর্কে আল্লাহ

শবে বরাত : কিছু প্রামাণ্য পর্যালোচনা

প্রতি বছর শাবানের ১৫ তারিখ আসলেই এটাকে কেন্দ্র করে পক্ষে-বিপক্ষে বিভিন্ন আলোচনা-সমালোচনা চলতে থাকে। কারো মতে এটা শবে কদরের মতোই বা তার চেয়েও দামী একটি রাত। আর ভিন্ন আরেক দলের নিকট এটা একেবারেই সাধারণ একটি রাত, যার বিশেষ কোনো ফযীলত নেই। আসলে বিষয়টি সম্পর্কে অজ্ঞতা কিংবা সঠিক পর্যালোচনার অভাবেই মানুষের মাঝে এমন মানসিকতা বিরাজ করছে।

পার্থিব জীবন সম্পর্কে ইসলামের দিক-নির্দেশনা

মানুষ নিজের সম্পর্কে গোড়া থেকেই একটা প্রকাণ্ড রকমের ভুলধারণা পোষণ করে আসছে এবং আজ পর্যন্তও তার সে ভুল ধারণা বর্তমান রয়েছে। কখনো সে বাড়াবাড়ির পথ অবলম্বন করে এবং কখনো নিজেকে সে দুনিয়ার সবচেয়ে উন্নত সত্তা বলে মনে করে নেয়। তার মন-মস্তিষ্কে স্পর্ধা, অহংকার ও বিদ্রোহের ভাবধারা পূর্ণ হয়ে যায়। কোন শক্তিকে তার শক্তির ওপরে দূরের কথা,

Top