Tag Archives: কুরআন

সূরা ফাতিহা : ফজিলত ও ইমামের পিছনে পড়ার বিধান

সূরা ফাতিহা : ফজিলত ও ইমামের পিছনে পড়ার বিধান

হযরত আবু হুরাইরাহ (রা.) থেকে বর্ণিত। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি এমন নামাজ পড়লো, যার মধ্যে উম্মুল কুরআন (সূরা ফাতিহা) পাঠ করে নি- তাঁর নামাজ অর্থ ও মূল্যহীন থাকে যাবে। (রাবী বলে) একথাটি তিনি তিনবার উল্লেখ করলেন। তাঁর নামাজ অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। আবু হুরাইরাকে জিজ্ঞেস করা হলো, আমরা যখন ইমামের পিছনে

পবিত্র কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়াত- আয়াতুল কুরসী

হযরত নাওয়াশ ইবনে সাময়ান (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছিঃ কিয়ামতের দিন কুরআন মাজীদ এবং তদানুযায়ী আমলকারী লোকদের উপস্থিত করা হবে। তাঁদের অগ্রভাগে সূরা বাকারা এবং সূরা আলে ইমরান থাকবে। এ দুইটি যেন মেঘমালা অথবা মেঘের ছায়া- যার মধ্যে থাকবে বিদ্যুতের মতো আলোক অথবা সেগুলো পালোকে বিছানো পাখির

পবিত্র কুরআন তিলাওয়াতের ফযিলত

আল্লাহ পাক ইরশাদ করেছেন, অবশ্যই তোমাদের নিকট আল্লাহর পক্ষ থেকে আলো ও সুস্পষ্ট গ্রন্থ এসেছে। এর মাধ্যমে আল্লাহ তাদেরকে শান্তির পথ দেখান, যারা তাঁর সন্তুষ্টির অনুসরণ করে এবং তাঁর অনুমতিতে তিনি তাদেরকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে বের করেন। আর তাদেরকে সরল পথের দিকে হিদায়াত দেন। (সূরা মায়িদাহ-১৫, ১৬) এই কুরআন শিক্ষা থেকে  দিন দিন আমরা

কোরআনিক বিজ্ঞান : একটি সাধারণ পর্যালোচনা

যৌক্তিক দৃষ্টিকোণ থেকে ইসলামের সাথে বিজ্ঞান ও বাস্তবতার যেমন অনেক সাদৃশ্য আছে তেমনি আবার কিছু বৈসাদৃশ্যও রয়ে গেছে। তবে বিজ্ঞানের সাথে ইসলামের যেসকল জায়গায় বৈসাদৃশ্য আছে সেগুলো নিয়ে বিজ্ঞান কাজ করে না – অর্থাৎ বিষয়গুলো বিজ্ঞানের আওতাভুক্ত নয়। যেমন: এই মহাবিশ্বের স্রষ্টা, মৃত্যুপরবর্তী জীবন, ফেরেশতা, জ্বীন, পাপ, পূণ্য, আত্মা, হালাল, হারাম, জান্নাত, জাহান্নাম, ইত্যাদি। বিজ্ঞান কখনোই

কুরআন তিলাওয়াতপূর্ব করণীয় ও পালনীয় এবং পড়ার পদ্ধতি ও ফজিলত

পবিত্র কুরআন একপি ঐশী গ্রস্থ। আসমানী গ্রন্থ হিসেবে এর গুরুত্ব ও মর্যাদা অন্য সব গ্রন্থের তুলনায় অনেক বেশি। তাই এই গ্রন্থটি পাঠ, অধ্যয়ন বা তিলাওয়াতের আগে কিছু করণীয় বা পালনীয় বিষয় রয়েছে এবং রয়েছে এর অধ্যয়ন বা তিলাওয়াতের বিশেষ ফজিলত। কুরআর পড়ার পূবে মৌলিক করণীয় : কুরআনের সাথে সফল সম্পর্কের জন্য হৃদয় ও মনের কতিপয়

Top